ঢাকারবিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, রাত ১:৩৪
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লক-ডাউনের মাঝেই বেআইনী দখল মুক্ত করতে ময়দানে বিশ্বভারতী কতৃপক্ষঃ বির্তক শান্তিনিকেতনে

মাহমুদুল হাসান, সাব-এডিটর
জুন ৯, ২০২০ ১০:১৮ অপরাহ্ণ
পঠিত: 140 বার
Link Copied!

মহিউদ্দীন আহমেদ। কলকাতা। 

 

বেআইনী ভাবে বসবাস করা দোকানপাঠ উচ্ছেদে নামলো বিশ্বভারতী কতৃপক্ষ। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী বিশ্ব বিদ্যালয়। যেখানে ভারত, বাংলাদেশ, জাপান, জার্মান সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ছাত্র- ছাত্রীরা পড়াশুনো করে। সেই শান্তিনিকেতনের বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় লাগোয়া রতনপল্লীতে বেশ কিছু দোকানপাঠ উচ্ছেদ করতে নামেন স্বয়ং উপাচার্য। এদিন তিনি বিশ্বভারতীর আধিকারিক, নিরাপত্তারক্ষী, কর্মীদের নিয়ে উচ্ছেদ অভিযানে যান। একাধিক দোকান উচ্ছেদ করা হয়। তবে, লক-ডাউনের মধ্যেই বিনা নোটীশে দোকান উচ্ছেদ করায় বির্তক তৈরী বেঁধেছে। ব্যবসায়ীরা জানাচ্ছেন, লক-ডাউন সময়কালে এমনিতেই দোকানে কেনাবেচা হয় নি । চরম আর্থিক সংকটের মধ্যে রয়েছেন তারা । এরই মাঝে দোকান উচ্ছেদ করায় তারা পথে বসেছে।

 

শান্তিনিকেতনের রতনপল্লীতে বেশ কিছু ফলের দোকান রয়েছে। বিশ্বভারতীর ছাত্র- ছাত্রী সহ শান্তিনিকেতনের আশ্রমিকরা এখান থেকেই সব ক্রয় করেন। নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অর্মত্য সেনের নামকরনে এই বাজারের নামকরন হয় অর্মত্য মার্কেট। সেই মার্কেটের দোকান উচ্ছেদ করায় এখন দিশেহারা দোকানদাররা। বিশ্বভারতী কতৃপক্ষ জানিয়েছে, যারা বিশ্বভারতীর জায়গা দখল করে ব্যাবসা করছে তাদের ভাড়া দিতে হবে। বেআইনী দখলদারদের উচ্ছেদ করা হবে।

 

বিশ্বভারতীর চত্বরে বিশ্বভারতীর জমিতে বসবাস করা ব্যাবসায়ী বা দোকান উচ্ছেদ করার ঘটনা নতুন নয়। এর আগে মেলার মাঠের পাশে হস্তশিল্প বেচাকেনা করার দোকানপাঠ উচ্ছেদ করার চেষ্টা করলে বির্তক তৈরী হয়। শান্তিনিকেতনের ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতা আমিনুর হোদা বলেন, বিশ্বভারতীর উপাচার্য সহ কিছু আধিকারিক আমাদের উচ্ছেদ করার জন্য লেগে আছে। স্হানীয় মানুষজন হস্তশিল্প বা ফলের দোকান করে কোন রকমে দিনগুজরান করে তা তাদের সহ্য হচ্ছে না। আমরা এর প্রতিবাদে পথে নামব।

দৈনিক বাংলাদেশ আলো পত্রিকায় প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না