ঢাকাশুক্রবার, ২৭শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, সকাল ৭:৪৩
আজকের সর্বশেষ সবখবর

জামালগঞ্জে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের বিনা অনুমতিতে ট্রেনিং ইনস্টিটিউট নামে নার্সিং প্রশিক্ষণে চলছে প্রতারণা

মাহমুদুল হাসান
জানুয়ারি ১৩, ২০২৩ ১২:১০ পূর্বাহ্ণ
পঠিত: 29 বার
Link Copied!

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ
সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলায় সাধারণ শিক্ষার্থী এবং বেকার যুাবতীদের প্রতারিত করার উদ্ধ্যেশে ফাঁদ পেতেছে একটি চক্র। উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের অনুমতি ছাড়াই ঢাকা মিরপুর শাখার- ১৫১৯৮৬ নিবন্ধনের মাধ্যমে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধিনে পরিচালিত প্রিয়জন কেয়ার ট্রেনিং ইনস্টিটিউট অব জামালগঞ্জ নামে ছয় মাসের প্রশিক্ষন কোর্স চালু করা হয়েছে। সাধারন বেকার শিক্ষার্থীদের ফাঁদে ফেলতে আকর্ষণীয় লিফলেট পোষ্টার ও ব্যানার ছাপিয়ে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হচ্ছে। এবং এপর্যন্ত ঊনিশ জন শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে ভর্তি ফি পাঁচ হাজার কোর্স ফি পঞ্চাশ হাজার টাকা নেওয়া হয়েছে বলে প্রতিষ্ঠানটির সিও মো: জয়নাল আবেদীন জানান।

অবিলম্বে এই ভুয়া প্রতিষ্ঠানটি কার্যক্রম বন্ধ না হলে গ্রামাঞ্চলের সাধারণ শিক্ষার্থী সর্বশান্ত হওয়ার আশংখ্যা রয়েছে। খোজ নিয়ে জানা যায় কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বোর্ডের অধিনে ঢাকা মিরপুর শাখার পরিচালিত নিবন্ধন ব্যবহার করে কেয়ার গিভিং কোর্সে ফাস্ট এইড, ফিজিও থেরাপী, সাইকোলজি, ড্রিমেনশিয়া, নার্সিং, নিউট্রিশন, অটিজম, হাউজ কিপিং, ওঊখঞঝ  স্পোকেন ইংলিশ ও বেসিক কম্পিউটার কোর্স শেষ করে কানাডা, অষ্ট্রেলিয়া, ইউরোপ, আমেরিকা, মধ্যপ্রাচ্য, ও জাপানে বিনা খরচে সরকারি ভাবে চাকুরীর বিশাল সুযোগের অফার দেওয়া হচ্ছে। এরকম ৯টি প্রশিক্ষন কোর্সের ভর্তির কথা বলে প্রতিশিক্ষার্থীদের নিকট থেকে ৫৫হাজার টাকা করে হাতিয়ে নিচ্ছে এই চক্রটি।
সরজমিনে দেখা যায় জামালগঞ্জ উপজেলা সদরে উপজেলা রেষ্ট হাউজ সংলগ্ন কাজী ভিলার ২য় তলায় ৩টি কক্ষ ভাড়া নিয়ে অফিস কার্যক্রম চালাচ্ছে। অফিসের প্রথম কক্ষে উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পেক্সের কর্মকর্তা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নাম সহ উদ্ভোধনী একটি ব্যানার টাংগানো রয়েছে।
অনুমোদন বিষয়ে জানতে চাইলে প্রিয়জন কেয়ার ট্রেনিং ইনস্টিটিউট অব জামালগঞ্জের সিও মো: জয়নাল আবেদীন জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে কাগজ পত্র দেখালে তিনি উপজেলা স্বাস্থ্যকর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করতে বলেন। আসলে এটা কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের আওতাধীন তাই উনাকে জানানো হয় নাই। ২০জন শিক্ষার্থী ভর্তি হলে আমরা জামালগঞ্জের শাখা অফিসের জন্য আবেদন করব।
এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত দেব জানান, আমার কাছে তারা এসে ছিল। আমি তাদেরকে বলে দিয়েছি। উপজেলা স্বাস্থ্যও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করে সিভিল সার্জন ও জেলা প্রশাসক মহোদয়ের অনুমোদন নেওয়ার জন্য। ঢাকা মিরপুরের নিবন্ধন দিয়ে জামালগঞ্জে ইনস্টিটিউট চলতে পারেনা। আমি এই বিষয়ে জামালগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জকে বলে দিয়েছি তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য।
এবিষয়ে জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইকবাল আল-আজাদ জানান, আমাকে উদ্ভোধনের জন্য দাওয়াত দেওয়া হয়েছিল কিন্তু গিয়ে দেখি তাদের কোন কাগজ পত্র নেই। আমি তাদেরকে বলেছি। জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে বৈধ কাগজ পত্র দেখিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অনুমতি সাপেক্ষে প্রশিক্ষনের কোর্স চালু করার জন্য। এরপর তারা আমার সাথে যোগাযোগ করে নাই। উদ্ভোধনী ব্যানারে আমার নাম ব্যবহার করে যদি শিক্ষার্থীদের প্রতারিত করে থাকে তাহলে নির্ধীদায় তারা প্রতারনার আশ্রয় নিয়েছে। এবিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

দৈনিক বাংলাদেশ আলো পত্রিকায় প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না